নিজস্ব প্রতিনি প্রতিনিধি

ধর্ম, সেবাই ইবাদত মনে করে সাতকানিয়া উপজেলার বাসীর সুখে দুঃখে পাশে থাকতে চাই দক্ষিণ চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলা ৫নং আমিলাইষ ইউনিয়নের কৃতি সন্তান আমিলাইশ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি
বিশিষ্ট সমাজ সেবক, শিক্ষানুরাগী এবং বিশিষ্ট ব্যবসায়ী দানবীর আলহাজ্ব মোহাম্মদ জিয়াউর রহমান জিয়া। জানা যায়, আলহাজ্ব মোহাম্মদ জিয়াউর রহমান জিয়া একজন কর্মীবান্ধব ছাত্র জীবনে ছাত্রলীগের সদস্য হিসেবে ফরম পূরণ করেন। সেই ছাত্রলীগ থেকে আজ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি। তিনি যেমন একজন কর্মীবান্ধব তেমনি স্বার্থবান ও ন্যায়নিষ্টবান হিসেবে দলের নেতাকর্মীসহ সাতকানিয়া জনগনের হৃদয়ের স্পন্দন হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন। দলীয় যে কোন আচার-অনুষ্ঠানে আর্থিক সহযোগীতার পাশাপাশি স্বতঃপূত অংশগ্রহনসহ দলীয় নেতাকর্মীদের সুখে দুঃখে সবসময় পাশে থাকায় দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে তার জনপ্রিয়তা এখন তুঙ্গে রয়েছে। তাছাড়াও সাতকানিয়া প্রতিটি মানুষকে ভালবাসার জন্য সাতকানিয়াবাসী উনার নাম দিয়েছেন গরিবের বন্ধু। উনাকে সবাই চিনে গরিবের বন্ধু হিসেবে।
তিনি কোন জনপ্রতিনিধি না হয়েও করে গেছেন একের পর এক নিজ অর্থায়নে সড়ক নির্মাণ, নালা, কবরস্থানের রিটানিং ওয়াল, পুকুরের জলঘাট, নলকুপ, মসজিদের উঠান ভরাট, আরসিসি ঢালাই, অযুখানা নির্মাণ, মসজিদ, মন্দিরে আর্থিক সহযোগীতা, দুস্থদের মাঝে শীত বস্ত্র বিতরণ, ঈদ উপহার, ইফতার সামগ্রী বিতরণ, অসহায় বিবাহযোগ্য কন্যার বিয়েতে সহযোগীতা, গরীব মেধাবী শিক্ষার্থী আর্থিক অনুদান প্রদান ছাড়াও করোনাকালীন সময়ে ১০ হাজার কর্মহীন,হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে ত্রাণ ও নগদ অর্থ প্রদানসহ বন্যার সময় ছুটে গেছেন মানুষের বাড়ি বাড়ি বন্যার পানি থেকে মানুষকে উদ্ধার সহ দিয়ে এসেছেন এণ সহায়তা। সাতকানিয়া বাসীর মনের মনিকোঠায় স্থান করে নিয়েছেন তিনি। তা ছাড়াও কোন হত দরিদ্র, দুস্থ অসহায় মানুষ তার দুয়ারে গেলে কখনো খালি হাতে ফেরত দেন না বলে তাকে গরিবের বন্ধু হিসেবে অনেকেই উপাধি দিয়েছেন। আমিলাইষ ইউনিয়নের বাসিন্দা তরুণ ভোটার হাবিবুর রহমান জানান এ রকম নিস্বার্থবান জননেতা কে যদি ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে পাওয়াটা সৌভাগ্যের ব্যাপার। তাই তারা যে কোন মূল্যে তাকে জনপ্রতিনিধি হিসেবে দেখতে চান। এবং তাদের অনুরোধ আলহাজ্ব জিয়া -উর রহমান জিয়া মত এক জনদরদীকে মূল্যায়ন করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে আর ও শক্তিশালী করে
জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণে ও প্রধানমন্ত্রীর “গ্রাম হবে শহর” বাস্তবায়নে এবং উন্নয়নশীল দেশ গঠনে সেই বিশেষ অবদান রাখবেন বলে মনে করছেন তারা।
আমিলাইষ ইউনিয়নের এই তরুন রাজনীতিবিদ আমিলাই ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি জিয়াউর রহমান জিয়া এক স্বাক্ষাতকারে বলেন, জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর চেতনাকে বুকে ধারণ করে ও তার কন্যা সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ট বাংলাদেশের উন্নয়নের রূপকার গণমানুষের আস্থাভাজন প্রিয় নেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অনুস্মরণ ও অনুকরণ করে সাতকানিয়া প্রতিটি ইউনিয়নের রাস্তা ঘাট,মসজিদ, মন্দির, গীর্জা উন্নয়ন কাজসহ নানা কাজ করে যাচ্ছি। ফলে জনপ্রতিনিধি না হয়েও মানুষকে ভালবাসতে চেষ্টা করে যাচ্ছি। জনগনের প্রতিনিধি হয়ে সাতকানিয়া অবহেলিত প্রতিটি ইউনিয়ন ও পৌরসভা কে প্রধানমন্ত্রীর বরাদ্দ প্রতিটি এলাকায় সমানভাবে বন্টন, রাস্তাঘাটের উন্নয়ন, শিক্ষার মান উন্নয়ন, নিরপেক্ষ গ্রাম আদালতে বিচার ব্যবস্থাসহ প্রধানমন্ত্রীর ‘গ্রাম হবে শহর’ বাস্তবায়নে করার লক্ষে
সাতকানিয়া উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী হতে মত প্রকাশ করেছেন।
ফলে দীর্ঘদিন সাতকানিয়া বাসীর সুখে-দুঃখে পাশে থাকায় তিনি বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখহাসিনার হাতকে আরো শক্তিশালী করতে পারবেন বলে আশা প্রকাশ করছেন।
ঘোষিত ‘গ্রাম হবে শহর’ এ ঘোষণা আমি বাস্তবে রূপদান করবো। সরকারি ত্রাণ, অনুদান, ভাতা উন্নয়ন কর্মকান্ডে সুষম বন্টন করবো। মাদক, সন্ত্রাস, ভিক্ষুক, দারিদ্র, বেকারত্ব মুক্ত ইউনিয়ন গড়বো, কর্ম সংস্থান সৃষ্টি করবো। সব মিলিয়ে আমি সাতকানিয়া কে মডেল উপজেলা হিসেবে পরিনত করব। তিনি জনগণের উদ্দেশ্যে বলেন আমি আপনাদের কাছে শাসক হিসাবে নয় আপনাদের সেবক হিসাবে আপনাদের পাশে থাকতে চাই। আপনারা আমার জন্য দোয়া করবেন আমি যাতে আমি দেশ ও দশের করে যেতে পারি।